কমতে পারে সাকিবের শাস্তি

স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক- ভারতীয় বুকি আগারাওয়ালের ম্যাচ ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পাওয়ার পর তা গোপন রাখায় সাকিব আল হাসানকে দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ করেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল আইসিসি।তবে তথ্য গোপন রাখলেও পরে তা স্বীকার ও আইসিসি’র দুর্নীতি দমন ইউনিট আকু’কে পূর্ণ সহযোগিতা করায় একবছর স্থগিত করা হয়েছে তার শাস্তি। অর্থাৎ আগামী একবছর কোনো ধরনের ক্রিকেটে অংশ নিতে পারবেন না তিনি। সে হিসাবে ২০২০ সালের ২৯ অক্টোবর থেকে ফের মাঠে ফেরার সুযোগ পাবেন সাকিব।

এদিকে বাংলাদেশের ক্রিকেটে এখন একটা গুমোট ভাব কাজ করছে। সাকিবের নিষেধাজ্ঞায় স্থবির হয়ে পড়েছে ক্রিকেটাঙ্গন। তবে ক্রিকেটাঙ্গনের এই গুমোট ভাব কিছুটা হলেও কমতে পারে। মানে সাকিব আল হাসানের নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ কমতেও পারে। সেটি কিভাবে? কারণ সাকিবের শাস্তি হয়েছে তার ও আইসিসির দ্বিপক্ষীয় আলোচনার ভিত্তিতে। এতে আপিলও করতে পারবে না সাকিব বা বিসিবি।

তবে আইসিসির শর্ত অনুযায়ী চলতে পারলে শাস্তির মেয়াদ কিছুটা কমে এলেও আসতে পারে। আইসিসি আয়োজিত দুর্নীতি দমন কার্যক্রমগুলোতে নিয়মিত অংশ নিয়ে সাকিব আইসিসিকে সন্তুষ্ট করতে পারলেই এমনটা হতে পারে। আইসিসির শর্ত অনুযায়ী দুর্নীতিবিরোধী কার্যক্রমগুলো ঠিকঠাকভাবে করলে বিসিবির জন্য সুযোগ তৈরি হতে পারে বিষয়টি নিয়ে আইসিসিতে দেনদরবার করার।এমন উদাহরণ অতীতেও আছে। পাকিস্তানের ফাস্ট বোলার মোহাম্মদ আমিরের ক্ষেত্রেই সেটি হয়েছে। ২০১০ সালে ইংল্যান্ড সফরে স্পট ফিক্সিংয়ের অভিযোগে পাঁচ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হন আমির, সালমান বাট ও মোহাম্মদ আসিফ। তবে শাস্তির মেয়াদ কমায় নির্ধারিত সময়ের ছয় মাস আগেই আমির ঘরোয়া ক্রিকেটে ফিরতে পেরেছিলেন।

সাকিবের ক্ষেত্রেও সে রকম কিছুর আশা করাই যায়। বিশেষ করে তিনি যেহেতু শুরুতেই ভুল স্বীকার করে নিয়েছেন এবং তদন্তেও আইসিসির দুর্নীতি দমন বিভাগকে যথেষ্ট সহযোগিতা করেছেন। সাকিবের ভুলের মাত্রাও আমির-বাটদের তুলনায় অনেক গৌণ। এখন আইসিসির শর্ত অনুযায়ী দুর্নীতিবিরোধী কার্যক্রমগুলো ঠিকঠাকভাবে করলে বিসিবির জন্য সুযোগ তৈরি হতে পারে বিষয়টি নিয়ে আইসিসিতে দেনদরবার করার।
বিসিবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিজাম উদ্দিন চৌধুরীও কাল সে রকম আভাস দিলেন, ‘এ রকম উদাহরণ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আছে। আমরাও দেখব সাকিবের জন্য কী করা যায়। বিসিবির পক্ষ থেকে যা যা সম্ভব, সবই করা হবে। এ রকম কোনো সুযোগ থাকলে অবশ্যই আমরা সেভাবে কাজ করব।’ সাকিব যেমন আইসিসির হয়ে দুর্নীতিবিরোধী প্রচারণায় অংশ নেবেন, একইভাবে বিসিবিও তাঁকে বিভিন্নভাবে এসব কাজের সুযোগ তৈরি করে দেবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

shares