চুরি হওয়া সন্তান ফিরে পেতে মানসিক ভারসাম্যহীন মায়ের বিলাপ

তিন বছর বয়সী সন্তানকে হারিয়ে বিলাপ করছেন ফরিদপুরের পথে পথে ঘুরে বেড়ানো মানসিক ভারসাম্যহীন এক মা। দুধের শিশুকে হারানোর পর থেকে কেঁদেই চলেছেন তিনি। কারও কোনো শান্তনাই থামাতে পারছে না ওই মায়ের বুকফাটা কান্না। সন্তানকে ফিরে পেতে সাহায্যের জন্য যাকে কাছে পাচ্ছেন তার দিকেই হাত বাড়িয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন তিনি।রোববার দুপুরে নিখোঁজ হয় শিশু মুক্তা (৩)। আনিস নামের এক ব্যক্তি মুক্তাকে জেলা কারাগারের দিকে নিয়ে যায়। এরপর আর ফিরে আসেনি বলে বিলাপ করছিলেন মানসিক ভারসাম্যহীন ওই মা।

স্থানীয় বিকাশ কর্মী মো. ইউসুফ শেখ ও মো. জয়ইফ আহমেদ জানান, প্রায় দুই মাস আগে শিশুসহ ওই মাকে ফরিদপুর শহরের জনতা ব্যাংকের মোড়ে শামসুদ্দিন টাওয়ারের সামনে দেখা যায়। দুধের শিশুটিকে দেখে মায়া করে অনেকেই খাবার কিনে দেয়। এর প্রায় ১৫ দিন পর ওই টাওয়ারের নৈশপ্রহরী তাদেরকে সেখান থেকে তাড়িয়ে দিলে ফায়ার সার্ভিসের সামনে আশ্রয় নেয়।

তারা জানান, দিনের অধিকাংশ সময় ফরিদপুর জেলা কারাগারের সামনে সড়ক ডিভাইডারের ওপর শিশুটিকে নিয়ে ওই মাকে বসে থাকতে দেখা যেত। তারা রাতে ঘুমাতেন ফায়ার সার্ভিসের গেটের পাশের ফাঁকা জায়গায়। শিশুটির মলিন মুখ দেখে মায়া হয় তাদের। তাই সহকর্মীদের সহায়তায় মা ও শিশু মুক্তার তিনবেলা খাবারের ব্যবস্থা করেন তারা। শীত নিবারণের জন্য তারা কম্বলও কিনে দিয়েছিলেন।

মুক্তার বয়স যখন দুই মাস তখন স্বামীর ঘর ছাড়তে বাধ্য হন ওই নারী। বিভিন্ন সময় কথোপকথনে ইউসুফ ও তার সহকর্মীদেরকে এমনটাই জানিয়েছিলেন শিশুটির মা। সে সময় যশোরের নওয়াপাড়ায় থাকতেন স্বামীর সাথে। শিশু মুক্তার নানা ঢাকার রামপুরায় থাকেন বলেও জানিয়েছিলেন ওই নারী।ফরিদপুরের পুলিশ সুপার মো. আলীমুজ্জামান (বিপিএম) জানান, শিশুটিকে তার মায়ের কোলে ফিরিয়ে দিতে পুলিশের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

shares