‘নেত্রীর একক সিদ্ধান্তেই আমি উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য’

আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা জয়নাল হাজারী একটি লাইভ ভিডিওতে বলেছেন, আওয়ামী লীগ নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একক সিদ্ধান্তেই আমাকে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য করা হয়েছে। বিষয়টি দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জানতেন না, জানার কথাও নয়। কারণ কাউন্সিল করে কিংবা মতামত নিয়ে উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য করা হয় না। আওয়ামী লীগ সভাপতির নিজস্ব সিদ্ধান্তে এটা হয়। তিনি স্বাক্ষর করে চিঠি পাঠিয়ে দেন আওয়ামী লীগে অফিসে।বর্তমানে সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন জয়নাল হাজারী। তিনি ওই ভিডিওতে আরও বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য নির্বাচিত করেছেন।

এটা সঙ্গে সঙ্গেই রেডিও-টেলিভিশন সব জায়গায় আলোচনায় এসেছে। কিন্তু এটা নিয়ে এখন বিভ্রান্তি সৃষ্টির পাঁয়তারা হচ্ছে। আমি নিজেও বিষয়টি জানতাম না। যখন প্রধানমন্ত্রী ঘণিষ্টজনেরা আমাকে জানালেন, তখন আমি এটি প্রচার করতে চাইনি। পরে দেখলায় কয়েকটি মিডিয়াতে বিষয়টি চলে এসেছে।জয়নাল হাজারী আরও বলেন, রাজনীতি করতে হলে কিছু মিথ্যা বলতে হয়। কিন্তু ওবায়দুল কাদের মিথ্যা বলেননি। তিনি সচিবালয়ে বলেছেন, ‘আমাকে উপদেষ্টা করার বিষয়টি তিনি জানেন না।’ তার কথা সত্য। বিষয়টি ওবায়দুল কাদেরের জানার কথাও নয়। কারণ উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য নির্বাচিত করতে কারও পরামর্শ নেয়া হয় না এবং আলোচনাও করা হয় না।ভারত ভাগের এক বছর আগে নোয়াখালীতে যে হিন্দু-মুসলমান দাঙ্গা হয় তার পর মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী ঐ অঞ্চলে গিয়ে প্রায় মাস তিনেক সময় কাটান। এ সময় বেশিরভাগ পায়ে হেঁটে তিনি পুরো অঞ্চলটি ঘুরে বেড়ান, হিন্দু-মুসলমান সমাজের নানা অংশের সাথে কথা বলেন, এবং বিভিন্ন জনসভায় গিয়ে ভাষণ দেন। তাঁর উদ্দেশ্য ছিল একটাই: এই হানাহানি বন্ধ করে দুর্বলকে রক্ষা করা।মি. গান্ধীর ঐ সফরের এক পর্যায়ে তাঁর একটি ছাগল চুরি যায়। তিনি ছাগলের দুধ পান করতেন। ফলে, এই চুরির ঘটনার জন্য দায়ী করে নোয়াখালীবাসীকে হেয় করার প্রচেষ্টা আজকের দিনেও দেখা যায়। কিন্তু ঐ সামান্য ঘটনার আড়ালে লুকিয়ে রয়েছে ঐ অঞ্চলের এক রক্তাক্ত ইতিহাস।ভারতে ব্রিটিশ শাসনের অবসানের এক বছর আগে থেকেই অবিভক্ত বাংলা প্রদেশ ছিল অগ্নিগর্ভ। হিন্দু ও মুসলমান সমাজের পারষ্পরিক সন্দেহ, অবিশ্বাস আর ঘৃণা এমন এক অবিশ্বাস্য পর্যায়ে পৌঁছেছিল যার জেরে ১৬ই অগাস্ট, ১৯৪৬ ঘটে যায় পূর্ব ভারতের ইতিহাসের কুখ্যাত সাম্প্রদায়িক হত্যাযজ্ঞ – ‘দ্য গ্রেট ক্যালকাটা কিলিংস’।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

shares