পৃথিবীকে আমরা ধীরে ধীরে বৈরী করে তুলছি: হাছান মাহমুদ

মানুষের বসবাসের একমাত্র জীবনতরী পৃথিবীকে ধীরে ধীরে বৈরী করে তোলা হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।মন্ত্রী বলেছেন, এই মহাবিশ্ব তৈরি হয়েছে ২০ বিলিয়ন বছর আগে। আর পৃথিবী তৈরি হয়েছে সাড়ে ৪শ’ কোটি বছর আগে। পৃথিবী ছাড়া মহাবিশ্বে একটিও গ্রহ পাওয়া যায়নি যেখানে মানুষ বসবাস করতে পারে কিংবা টিকে থাকতে পারে। তাই এই বিশাল মহাবিশ্বে পৃথিবীই হচ্ছে মানুষের বসবাসের একমাত্র জীবনতরী। কিন্তু সেটাকেই আমরা ধীরে ধীরে বৈরী করে তুলছি। খুব সংগোপনে আমাদের অগোচরে এটি ঘটে যাচ্ছে। ঠিক মাথার চুল পড়ার মতো।

বৃহস্পতিবার বিকালে রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক উপ-কমিটি আয়োজিত দুই দিনব্যাপী সেমিনারের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ সব কথা বলেন।ড. হাছান মাহমুদ আরও বলেন, বাংলাদেশ হচ্ছে ‘ইনোসেন্ট ভিকটিম অফ ক্লাইমেন্ট চেঞ্জ’। কারণ ‘ক্লাইমেন্ট চেঞ্জের’ ক্ষেত্রে আমাদের দায় নেই। জয়বায়ু পরিবর্তনে আমাদের কোনো ভূমিকা নেই। কিন্তু আমরা এর অসহায় শিকার। তার পরও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ জয়বায়ু পরিবর্তন ঝুঁকি মোকাবেলায় অনেক কাজ করছে। দেশের বড় রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে আওয়ামী লীগই প্রথম আজ থেকে ১৭-১৮ বছর আগে দলে পরিবেশ সম্পাদকের পদ সৃষ্টি করেছিল। আমরা যখন ক্ষমতায় ছিলাম না তখনই অনেক সেমিনার সেম্পোজিয়াম করেছি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ ধীরে ধীরে উন্নত দেশের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা এখন আর স্বল্পোন্নত দেশের তালিকাভুক্ত কোনো দেশ নই। আমরা এখন উন্নয়ন দেশের তালিকাভুক্ত। আমরা পৃথিবীর অন্যতম ঘনবসতিপূর্ণ দেশ। প্রতি বর্গকিলোমিটারে প্রায় ১২শ’ মানুষের বসবাস। বাংলাদেশে মানুষের মাথাপিছু কৃষি জমির পরিমাণ পৃথিবীর মধ্যে সর্বনিম্ন। সেখান থেকে দেশকে উন্নয়নের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া একটা বড় চ্যালেঞ্জ। বঙ্গবন্ধু কন্যা সেটাই বাস্তবায়ন করে চলেছেন।

‘টেকসই ভবিষ্যতের জন্য সবুজ পরিবেশ’-প্রতিপাদ্য নিয়ে পরিবেশ ও জলবায়ু নিয়ে দেশে প্রথমবারের মতো দুই দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক সম্মেলনের আয়োজন করে আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশবিষয়ক উপ-কমিটি।

বুধবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে সম্মেলনের উদ্বোধনী অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনের দ্বিতীয়দিন বৃহস্পতিবার সকালে সিরডাপ মিলনায়তনে পেপার ও পোস্টার প্রেজেন্টেশন অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে দেশি-বিদেশি পরিবেশবিদ ও বিজ্ঞানীগণ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

shares