কোচিং, প্রাইভেট ব্যাপারে নতুন সিদ্ধান্ত জানালেন শিক্ষামন্ত্রী

নোট-গাইড আগের মতোই নিষিদ্ধ থাকলেও সন্ধ্যার পর চলবে কোচিং সেন্টার। তবে কোচিং সেন্টারে শিক্ষার্থীদের ড্রেস কোড থাকছে না। প্রস্তাবিত শিক্ষা আইনের খসড়ায় কোচিং সেন্টার নিয়ে এ ধরনের বিধান রাখা হচ্ছে। খসড়া আইনটি শিগগরিই চূড়ান্ত করে তা অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে। জানা গেছে, দীর্ঘ ১০ বছর ধরে আইনটির খসড়া নিয়ে কাজ চলছে। সর্বশেষ গত রোববার বিষয়টি নিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল সভাঅনুষ্ঠিত হয়। এতে আগের খসড়ায় তেমন কোনো পরিবর্তন আনা হয়নি। আইনে কৌশলগতভাবে কোচিং থাকলেও নোট-গাইড বই থাকছে না, এমনটাই বলা হয়েছে। এছাড়া কোচিং সেন্টার পরিচালনা সংক্রান্ত ধারায় উল্লেখ করা হয়েছে, সন্ধ্যার পর কোচিং সেন্টার চালানো যাবে। শিক্ষার্থীদের প্রাইভেট টিউশনির মাধ্যমে পাঠদানে কোচিং সেন্টার পরিচালনা করা কিংবা কোচিং সেন্টারে শিক্ষকতা নিষিদ্ধ গণ্য হবে না। আরো বলা হয়েছে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান চলাকালীন সন্ধ্যার আগ পর্যন্ত বা দিনে কোচিংসেন্টার পরিচালনা করা যাবে না। এটি করা হলে সংশ্লিষ্ট কোচিং সেন্টারের লাইসেন্স বাতিল হবে। কোচিং সেন্টারে কোনো শিক্ষক নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীকে পড়াতে পারবেন না। খসড়ায় আরও বলা হয়েছে, খসড়া আইনে ড্রেস কোডের উল্লেখ থাকবে না। অবশ্য নীতিমালায় ড্রেস কোড নির্ধারণ করা হবে পরে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবুল খায়ের সাংবাদিকদেরকে বলেন, ‘খসড়ায় তেমন পরিবর্তন আনা হয়নি। আইনে না থাকলেও হয় এমন দুটি বিষয় বাদ দিয়ে দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে শিক্ষার্থীদের ড্রেস কোড রয়েছে, তা আইনে রাখা হয়নি। এছাড়া খসড়া অনুযায়ী নোট-গাইড নিষিদ্ধ রাখার বিষয়টি আগের মতোই রয়েছে।’ তথ্যসূত্রঃ দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাস ডট কম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *