বৌ,মার স্ত*ন বেশ ভালো, নাতির ভালো খা,ওয়া দাওয়া হচ্ছে” বলায় বা,ড়িছা,ড়া শ্ব,শুর

বাড়িতে নি’জের মতো করে স’ন্তানকে স্ত’’ন’দু’গ্ধ পান করা’চ্ছিলেন মা। জীবনে প্রথমবার এবং নতুন মা হওয়ার অনু’ভূ’তিতে আচ্ছন্ন ছিলেন তিনি।

সেই স’’ঙ্গে মা হওয়ার কারণে শা’রী’রি’ক অ’বস্থার বদলের বি’ষয়টিও মাথায় ঘুরছিল। এমন সময়ে এল তাঁর শরীর সংক্রা’ন্ত প্রশংসা। যা খুশি নয়, নিয়ে এল বিস্তর বে’দনা। নিজের নাতিকে মা’তৃদু’গ্ধ পান করাতে দেখে’ছিলেন এক বৃ’দ্ধ। যিনি সম্পর্কে ওই ম’হিলার শ্বশুর। সেই সময়ে সরা’সরি নিজের ছেলের বৌকে তিনি জানিয়ে দেন যে তাঁর(পুত্রবধূর) স্ত’’ন যুগল খুবই সু’ন্দর।

অমন বড় স্ত’’ন সচরাচর দেখা যায় না। যা নিয়েই শুরু হল বিপত্তি। বিবাদ এতটাই দূরে গড়াল যে স’স্ত্রীক বাড়ি ছাড়তে হল ওই বৃ’দ্ধকে। এই বি’ষয়ে ওই ম’হিলার স্বামী বলেছেন, “আমা’র স্ত্রী আমা’দের ছেলেকে নিজের দুধ খাও’য়াচ্ছিল। সেই সময়ে আমা’র বাবা আমা’র স্ত্রীর স্ত’’ন দেখতে পায়। যদিও স্ত’’নবৃ’ন্ত দেখতে পায়নি।

সেই সময়ে আমা’র বাবা জানায় যে বৌ’মা’র স্ত’’ন বেশ ভালো, নাতির ভালো খাওয়া দাওয়া হচ্ছে। আমা’র স্ত্রীর বি’ষয়টি ভালো লাগেনি। খুব দুঃখিত হয়েছিল। এবং খুব কেঁ’দেছিল।” এরপরে বি’ষয়টি নিজের মাকে জানান নতুন বাবা তথা ওই ম’হিলা’র স্বামী। নতুন ঠাকুমা সমগ্র বি’ষয়টি শুনে খুবই ক্রুব্ধ হয়েছিলেন।

বি’ষয়টি নিজের বাবাকেও জানান তিনি। তাঁর কথায়, “আমি বাবাকে বল’ছিলাম যে এই ধরণের কথা বা মন্তব্য যেন আর উনি না করেন। অন্যথায় এই বাড়িতে তাঁর থাকা হবে না বলেও জানিয়ে দেওয়া হয়। আমা’র মাও একই কথা বলে’ছিলেন।” এরপরে আচ’মকা নিজের পু’ত্রবধূর কাছে ওই মন্তব্যের জন্য ক্ষ’মা চেয়ে নেন বৃ’দ্ধ ব্যক্তি।

ওই ধরণের মন্তব্য তিনি আর করবেন না বলেও অ’’ঙ্গি’কার করেন তিনি। এতেই চটে গিয়ে শ্ব’শুরকে তিরস্কার করেন তাঁর পুত্রবধূ। তিনি তাঁর শ্বশুরকে ‘বিকৃত’ এবং ‘বি’র’ক্তিকর’ বলেন। এরপরেই নিজের স্ত্রীকে নিয়ে ওই বাড়ি ছেড়ে চলে যান ওই বৃ’’দ্ধ ব্যক্তি। এরপরেই সমগ্র ঘটনা সো’শ্যাল মি’ডিয়ায় শেয়ার করেছেন বাড়ি ছাড়া বৃ’দ্ধ দম্পতির স’ন্তান।

ওই পোস্টে নি’জের বাবাকে গাধার স’ঙ্গে তুলনা করেছেন নতুন বাবা হওয়া ওই ব্যক্তি। তিনি বলেছেন, “আমা’র বাবা একটা গা’ধার মতো কাজ করেছে। একবার যখন ভুল করে ফে’লেছিল সেটা নিয়ে আবার ক্ষ’মা চাইতে যাওয়ার কোনও মানে ছিল না। ফের প্র’স’ঙ্গ উত্থাপন করে বিপদ বাড়িয়ে দিল। এদের গাধা ছাড়া আর কী বলা যেতে পারে!”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *